সোমবার, ২২ Jul ২০২৪, ০২:১৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
চেয়ারম্যান: মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন, বার্তা প্রধান : মোহাম্মদ আসিফ খোন্দকার, আইনবিষয়ক সম্পাদক: অ্যাডভোকেট ইলিয়াস , যোগাযোগ : ০১৬১৬৫৮৮০৮০,০১৮১১৫৮৮০৮০, ঢাকা অফিস: ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম রোড, চৌধুরী মল (৫ম তলা), টিকাটুলি ১২০৩ ঢাকা, ঢাকা বিভাগ, বাংলাদেশ মেইল: bdprotidinkhabor@gmail.com চট্টগ্রাম অফিস: পিআইবি৭১ টাওয়ার , বড়পুল , চট্টগ্রাম।
সংবাদ শিরোনাম:
কোটা আন্দোলনে সাধারণ স্কুল কলেজ ছাত্র ও ছাত্রীরা ১০ ঘন্টা বন্ধ করে দেয় নওগাঁ-সান্তাহারের রেলযোগাযোগ যশোরের ঝিকরগাছায় প্রবাসীর স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা ,কন্যা গুরুতর আহত বঙ্গবন্ধু কন্যা গোলামী চুক্তি করেননি উন্নয়নের চুক্তি করেছেখাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদা নওগাঁর মান্দা গোটগাড়ী অধ্যক্ষের কক্ষের তালা ভেঙে প্রবেশ করলেন উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাংবাদিকদের বিতর্কিত করায় এনবিআর কর্মকর্তা মতিউরের প্রথম স্ত্রী লাকীর বিরুদ্ধে বিএমইউজে চট্রগ্রাম জেলা আহবায়ক কমিটির প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের প্রয়াণ দিবস আজ জুয়া খেলার সরঞ্জাম ও নগদ টাকাসহ পাঁচজন জুয়াড়ি গ্রেফতার বিপৎসীমার ওপরে তিস্তা-ধরলার পানি, পানিবন্দি ১৫ হাজার মানুষ হাড্ডাহাড্ডি দুই চৌধুরীর ‘লড়াই লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জিতে গেলেন খোরশেদুল আলম চৌধুরী কোন লক্ষণে বুঝবেন বিবাহবিচ্ছেদ ঘটতে পারে?

বাজারে কাঁচা আমের দাম চড়া

বৈশাখ আসতে বাকি আরও পাঁচদিন। এরই মধ্যে রাজধানীর পাড়া-মহল্লার সবজির দোকান কিংবা ছোট-বড় বাজার সবখানেই কাঁচা আম পাওয়া যাচ্ছে।হোটেল, রেস্তোরাঁয় কাঁচা আমের শরবতও বিক্রি হচ্ছে দেদার। বাড়িতে আচার, চাটনি, শরবত কিংবা ডালের সঙ্গে রান্নার জন্যও কাঁচা আম কিনছেন অনেকে। তবে বাজারে কাঁচা আমের দাম চড়া।

আজ (৮ এপ্রিল) শুক্রবার কাওরান বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে গুটি ও বার্মিজ মিলছে দুই ধরনের আম। গুটি ও বার্মিজ আম। গুটি আমের কেজি ১০০ টাকা ও বার্মিজ আমের কেজি ১০০-১৩০ টাকা।

ফল ব্যবসায়ীরা বলছেন, ফেব্রুয়ারির শেষে বাজারে কাঁচা আম এসেছে। বার্মিজ আম আসে মূলত টেকনাফ থেকে। আর গুটি আম আসছে সাতক্ষীরা, রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন জেলা থেকে।

ক্রেতারা বলছেন, বার্মিজ আম চ্যাপ্টা, লম্বাটে হলেও এর চেয়ে দেশি আম সুস্বাদু।কারওয়ান বাজারে নাখালপাড়া থেকে আম কিনতে এসেছিলেন গৃহিণী শাফিয়া জামান। তিনি জানান, বাড়িতে আচার বানানোর জন্য তিনি ১০ কেজি আম নিতে চান। কিন্তু দেখে শুনে বাজার যাচাই করে তবেই কিনবেন। এ জন্যই তার কারওয়ান বাজারে আসা।

তিনি বলেন, গত বছরের তুলনায় দাম অন্তত ৩০ টাকা বাড়তি চাইছে ব্যবসায়ীরা। অন্যদিকে, ব্যবসায়ীদের দাবি সামান্য মুনাফা রেখেই তারা ছেড়ে দিচ্ছেন।

কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ী মাসুদ মিয়া বলেন, এপ্রিলের মাঝামাঝি পর্যন্ত কাঁচা আমের দাম ১০০-১৫০ পর্যন্ত টাকা থাকবে। পহেলা বৈশাখের আগে একটু বাড়তে পারে। তারপর ৫০-৬০ টাকায় নেমে আসবে।

তিনি বলেন, রাজশাহীর আম আসবে একেবারে জুন-জুলাইয়ের শেষের দিকে। তখন আসবে পাকা আম। কাঁচা আমের যোগান কম তাই দাম বেশি। আর বাজারে পাকা আম আসা শুরু করলে কাঁচা আমের দাম এমনিতেই কমে যায়।

কাঁচা আমের আড়তদার তবারক আলম বলেন, এখন কাঁচা আমের বেশির ভাগ ক্রেতা রেস্তোরাঁয় মালিক, বিভিন্ন বাজারের সবজি ব্যবসায়ী, পাড়া–মহল্লার সবজির দোকানদার ও ফেরিওয়ালারা। ভর্তা বা তরকারিতে দেওয়ার জন্যও কাঁচা আম নিয়ে যায়। তবে সে পরিমাণ কম।

তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখের আগে আমের দাম টা একটু চড়াই থাকে। কেননা সে সময় রেস্তোরাঁয় বেশি চলে কাঁচা আমের শরবত। জোগান বেশি হলেই কাঁচা আমের দাম কমে যায়। সাধারণত বৈশাখী ঝড়ের পরেই জোগান বাড়তে থাকে বাজারগুলোতে।

এদিকে, একটি ফলের দোকানে দেখা মিললো ঈষৎ পাকা আমের। দোকানি শাহজাহান মিয়া বলেন, আমের নাম ল্যাংড়া, এনেছেন বাদামতলি ফলের আড়ত থেকে। প্রতি কেজি ৪০০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। বিক্রিও হচ্ছে বেশ।

তবে এই সময় ল্যাংড়া আম কীভাবে পেলেন জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, এইটা বিদেশি আম। তবে ল্যাংড়া আমের মতো দেখতে হওয়ায় এই আমের নামও ল্যাংড়া।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ওয়েবসাইট এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি
Design & Development BY ThemeNeed.Com