সোমবার, ২২ Jul ২০২৪, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
চেয়ারম্যান: মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন, বার্তা প্রধান : মোহাম্মদ আসিফ খোন্দকার, আইনবিষয়ক সম্পাদক: অ্যাডভোকেট ইলিয়াস , যোগাযোগ : ০১৬১৬৫৮৮০৮০,০১৮১১৫৮৮০৮০, ঢাকা অফিস: ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম রোড, চৌধুরী মল (৫ম তলা), টিকাটুলি ১২০৩ ঢাকা, ঢাকা বিভাগ, বাংলাদেশ মেইল: bdprotidinkhabor@gmail.com চট্টগ্রাম অফিস: পিআইবি৭১ টাওয়ার , বড়পুল , চট্টগ্রাম।
সংবাদ শিরোনাম:
কোটা আন্দোলনে সাধারণ স্কুল কলেজ ছাত্র ও ছাত্রীরা ১০ ঘন্টা বন্ধ করে দেয় নওগাঁ-সান্তাহারের রেলযোগাযোগ যশোরের ঝিকরগাছায় প্রবাসীর স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা ,কন্যা গুরুতর আহত বঙ্গবন্ধু কন্যা গোলামী চুক্তি করেননি উন্নয়নের চুক্তি করেছেখাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদা নওগাঁর মান্দা গোটগাড়ী অধ্যক্ষের কক্ষের তালা ভেঙে প্রবেশ করলেন উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাংবাদিকদের বিতর্কিত করায় এনবিআর কর্মকর্তা মতিউরের প্রথম স্ত্রী লাকীর বিরুদ্ধে বিএমইউজে চট্রগ্রাম জেলা আহবায়ক কমিটির প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের প্রয়াণ দিবস আজ জুয়া খেলার সরঞ্জাম ও নগদ টাকাসহ পাঁচজন জুয়াড়ি গ্রেফতার বিপৎসীমার ওপরে তিস্তা-ধরলার পানি, পানিবন্দি ১৫ হাজার মানুষ হাড্ডাহাড্ডি দুই চৌধুরীর ‘লড়াই লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জিতে গেলেন খোরশেদুল আলম চৌধুরী কোন লক্ষণে বুঝবেন বিবাহবিচ্ছেদ ঘটতে পারে?

২ মিনিটেই ‘গায়েব’ কক্সবাজার এক্সপ্রেসের টিকেট, সিন্ডিকেটের খোঁজে র‍্যাব

মোঃ সেলিম উদ্দিন খান (বিশেষ প্রতিনিধি)

স্বপ্নের ট্রেন ‘কক্সবাজার এক্সপ্রেস’। তবে এর টিকেট যেন সোনার হরিণ। সকাল ৮টায় অনলাইনে টিকেট ছাড়ার ২ মিনিটের মধ্যে ভোজবাজির মতো উধাও হয়ে যায় ১ হাজার ১০ টি টিকেট। মেলে না কাউন্টারেও। কিন্তু দেড়শো থেকে ২০০ টাকা বেশি দিলে ঠিকই কালোবাজারিদের কাছে পাওয়া যায় টিকেট। পর্যটন শহরে ট্রেন চালু হওয়ায় সবার মধ্যে যে স্বস্তি এসেছিলো টিকেট কালোবাজারি চক্রের কারণে তা দিন দিন উধাও হয়ে যাচ্ছে।

সংঘবদ্ধ এই চক্রের হাতে জিম্মি যাত্রী ও পর্যটকরা। জালিয়াতির নেপথ্যে রয়েছে রেল এবং ই-টিকেটিং এজেন্সির অসাধু কর্মকর্তারা। ভয়াবহ এ জালিয়াতির ঘটনায় স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলা করেছেন আদালত। এরপর আদালতের নির্দেশে তদন্তে নেমেছে র‍্যাব।

কালোবাজারির বিষয়ে ভুক্তভোগী এক যাত্রী বলেন, অনলাইনে সকাল ৮টা ১ মিনিটে টিকেট ছাড়ে। আমি ৮টা ২ মিনিটে দেখি সব টিকেট বিক্রি হয়ে গেছে। এগুলো কীভাবে হয়?

আরেক পর্যটক বলেন, ২-৩ মিনিটের মধ্যে টিকেট গায়েব। যেটা কোনোভাবেই সম্ভব না। এখানে কোনো একটা কারসাজি আছে। ১০ দিন আগে টিকেট বুকিং দিতে হয়। তাও সেটি পাওয়া যায় না। মানুষ কখন কোন প্রয়োজনে ভ্রমণ করবে সেটি তো এতদিন আগে নির্ধারণ করা সম্ভব নয়।

তবে ভুক্তভোগীদের আরও অভিযোগ, কক্সবাজারে টিকেট কালোবাজারি সিন্ডিকেট সক্রিয় রয়েছে। তারা বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গ্রুপ খুলে প্রকাশ্যে টিকেট বিক্রি করছে। নেপথ্যে রয়েছে- রেলওয়ের ও স্টেশনের অসাধু চক্র।

এ বিষয়ে স্থানীয় এক যাত্রী বলেন, স্টেশন ও অনলাইন কোথাও টিকেট পাওয়া যাচ্ছে না। এটি সম্পূর্ণ কালোবাজারিদের হাতে চলে গেছে। চড়া দাম দিয়ে টিকেট নিতে হচ্ছে। আমি দ্বিগুণ দাম দিয়ে সংগ্রহ করেছি।

তবে সিন্ডিকেটের কারসাজির অভিযোগ মানতে নারাজ কক্সবাজার রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার গোলাম রব্বানী। তিনি বলেন, টিকেটের সার্ভার কেন্দ্রীয়ভাবে পরিচালনা করা হয়। কক্সবাজার স্টেশনে টিকেট নিয়ন্ত্রণের কোনো ব্যবস্থা নেই। অনলাইন টিকেট কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হয়।

কালোবাজারী সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য এবং যাত্রীদের হাহাকারের বিষয়টি নজরে আসায় চক্রটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলা করেছেন কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত। এতে ই-টিকেটিং পোর্টাল ‘সহজ ডটকমের’এক কর্মকর্তা ও তার দুই সহযোগীকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কক্সবাজার আদালতের পিপি ফরিদুল আলম বলেন, টিকেট কালোবাজারিদের দখলে চলে আসছে। কক্সবাজারের জনগণ এতে উদ্বিগ্ন। আদালত স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ তদন্ত করবেন বলে আশা রাখছি।

২ মিনিটে কীভাবে এত টিকেট উধাও হচ্ছে এবং কারা এই সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত এসব তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছে র‍্যাব। তদন্তের বিষয়ে র‍্যাব-১৫ এর অধিনায়ক এইচএম সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আমরা ইতোমধ্যে ছায়াতদন্ত শুরু করেছি। ইনশাআল্লাহ সকলে খুব দ্রুতই ভালো ফল পাবেন।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ওয়েবসাইট এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি
Design & Development BY ThemeNeed.Com