রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০১:২৬ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
চেয়ারম্যান: মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন, বার্তা প্রধান : মোহাম্মদ আসিফ খোন্দকার, আইনবিষয়ক সম্পাদক: অ্যাডভোকেট ইলিয়াস , যোগাযোগ : ০১৬১৬৫৮৮০৮০,০১৮১১৫৮৮০৮০, ঢাকা অফিস: ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম রোড, চৌধুরী মল (৫ম তলা), টিকাটুলি ১২০৩ ঢাকা, ঢাকা বিভাগ, বাংলাদেশ মেইল: bdprotidinkhabor@gmail.com চট্টগ্রাম অফিস: পিআইবি৭১ টাওয়ার , বড়পুল , চট্টগ্রাম।

কলকাতায় ডিমের দাম কমলেও ঝাঁঝ বেড়েছে পেঁয়াজের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

কলকাতায় এখনো সে ভাবে বর্ষা নামেনি। তবে কলকাতাসহ পার্শ্ববর্তী জেলায় প্রতিদিনই হালকা বৃষ্টি হচ্ছে। কলকাতার বাজারে গত মে মাসের দিকে গরমে ডিমের দাম বাড়তে শুরু করে। জুন মাসে পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হলে ফের জুলাই মাসে ডিমের জোড়া ১২ রুপিতে বিক্রি করা হয়। কোথাও কোথাও সেই ডিম জোড়া ১৩ রুপিতেও বিক্রি হয়েছে।

আগস্টের প্রথম সপ্তাহে কলকাতার বাজারে ডিমে প্রতি পিস ডিমের দাম ৬ রুপি ছিল। তবে আগস্টের দ্বিতীয় সপ্তাহের শুরুতে ডিমের দাম একটু কমে জোড়া ১১ রুপিতে দাঁড়িয়েছে। তবে কেউ যদি একটা ডিম নেয় সেক্ষেত্রে দাম পড়ছে ৬ রুপি। বাজারে খুচরা ডিমের দামে কিছুটা পরিবর্তন নজরে এসেছে। খুচরা বাজারে ডিমের দাম প্রতি জোড়ায় ৫০ পয়সা কমেছে। ট্রে প্রতি ডিমের দাম ১৬৫ রুপি। অনেক বাজারে দেখা যাচ্ছে এক ট্রে ডিম কিনলে ১৬০ রুপি দাম নিচ্ছে।

এ কারনে বর্তমানে খোলা বাজারে পেঁয়াজের মজুত কম রয়েছে। এই অবস্থায় আশঙ্কা করা হচ্ছে চলতি মাসের শেষের দিকে পেঁয়াজের মজুত কমে যাবার ফলে দাম বাড়তে পারে। তবে পূজার মৌসুমে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করবে। সে সময় খরিফ শস্য খোলা বাজারে আসতে শুরু করে।বর্তমানে কলকাতাসহ পার্শ্ববর্তী শহরাঞ্চলের বাজারে একটু বড় সাইজের পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৩৫ থেকে ৪০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে। অপরদিকে একটু ছোট সাইজের পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৩০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে।

ডিমের পাশাপাশি টমেটোর পর এবার মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে যেতে পারে পেঁয়াজ। আগষ্ট মাসের শেষে ও সেপ্টেম্বরের শুরুতে পেঁয়াজের দাম বেড়ে দ্বিগুণ হতে পারে বলে মনে করছেন খুচরা বাজারের বিক্রেতারা। বর্তমানে প্রতি কেজি পেঁয়াজের জন্য ক্রেতাদের দ্বিগুণ খরচ হতে পারে বলে মনে করছেন তারা।

চাহিদা ও সরবরাহের ব্যবধানের কারণেই হয়তো বাড়তে চলেছে পেঁয়াজের দাম। আগস্ট মাসের শেষের দিকে আস্তে আস্তে বাড়তে শুরু করবে পেঁয়াজের দাম। কলকাতার কোলে মার্কেটের ব্যবসায়ী বাবন দাস বলেন, রবি মৌসুমে যে পেঁয়াজ তোলা হয় সেগুলো খুব বেশি দিন ঠিক থাকে না। এক থেকে দুমাসের মধ্যেই সে পেঁয়াজ পচে যায়।

পেঁয়াজের পাশাপাশি আদা ও রসুনের ঝাঁজও বেড়েছে কলকাতার বাজারে। কিছুদিন আগে খোলা বাজারে আদা-রসুনের দাম ছিল কেজিপ্রতি ২৩০ রুপি থেকে ২৫০ রুপি। সেই আদা-রসুন বর্তমানে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি ৩০০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে। তবে কাঁচা লঙ্কার ঝাঁজ একটু কম খোলা বাজারে। কোথাও প্রতি কেজি ১০০ থেকে ১২০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে। মাঝে খানিকটা সবুজ শাক সবজির দাম বাড়লেও বর্তমানে তা মধ্যবিত্তের কিছুটা নাগালের মধ্যে ‌রয়েছে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ওয়েবসাইট এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি
Design & Development BY ThemeNeed.Com