বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:২০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
প্রকাশক ও সম্পাদক : মোঃ বিল্লাল হোসেন।  আইনবিষয়ক সম্পাদক: অ্যাডভোকেট রাসেল । যোগাযোগ : ০৩১-৭২৮০৮৫, ০১৮১১৫৮৮০৮০ মেইল: bdprotidinkhabor@gmail.com জহুর উল্লাহ বিল্ডিং (৩য় তলা), পানওয়ালা পাড়া, চৌমুহনী, উত্তর আগ্রাবাদ ১২৭৭, চট্টগ্রাম।
সংবাদ শিরোনাম:
ভাষা শহিদদের প্রতি মৌলভীবাজার পুনাকের শ্রদ্ধাঞ্জলি মৌলভীবাজারে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে পুলিশ আওয়ামী লীগ হট্রগোল শ্রীমঙ্গলে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ গভীর শ্রদ্ধার সাথে ভাষা শহীদদের স্মরণ শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের বিনয়বাঁশী শিল্পীগোষ্ঠী’র উদ্যোগে মাতৃভাষা দিবস পালিত ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ ‘বিশেষ ট্রেন’ আর্জেন্টিনার ক্লাব ছেড়ে আবাহনীতে খেলবেন জামাল? নওগাঁ আজ যথাযোগ্য মর্যাদায় মধ্যেদিয়ে পালিত হল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস লোহাগাড়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বীর শহীদদের প্রতি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন লোহাগাড়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস উপলক্ষে ব্রিকফিল্ড মালিক সমিতির পুষ্প অর্পণ

৫৪ হাজার অভিবাসী পেলেন বসবাসের অনুমতি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

জার্মানিতে বসবাসের অস্থায়ী অনুমতি পেয়েছেন প্রায় ৫৪ হাজার অভিবাসী। তাদের কাছে এতদিন বসবাসের বৈধ কাগজপত্র ছিল না। তবে নতুন একটি আইনের আওতায় সম্প্রতি এসব অভিবাসীকে বসবাসের অস্থায়ী অনুমতি দিয়েছে জার্মান সরকার।

অনুমতি পাওয়া অভিবাসীদের মধ্যে রয়েছেন জার্মানিতে অবস্থানরত ওইসব বিদেশি, যারা আশ্রয় আবেদনের সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষমাণ ছিলেন অথবা যাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত থাকলেও নানা কারণে দেশে পাঠানো যাচ্ছিল না।

২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পাস হওয়া অপারচ্যুনিটি রেসিডেন্স অ্যাক্ট নামের এই আইনটি মূলত পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে যারা জার্মানিতে বসবাস করছেন, তাদের জন্য দেশটিতে বৈধভাবে থাকার পথ সুগম করছে।এই আইনের আওতায় যারা অনুমতি পাওয়ার যোগ্য, তাদের সপরিবারে ১৮ মাস পর্যন্ত থাকার অনুমতি পাবেন।

এর মধ্যে যারা নিজেদের জীবনযাপনের ব্যয় বহন করতে পারবেন, জার্মান ভাষায় যথেষ্ট দক্ষতা রয়েছে এবং নিজেদের অবস্থান বিষয়ে পরিষ্কার উত্তর রয়েছে, তারা এই অস্থায়ী অনুমতি স্থায়ী অনুমতিতে রূপান্তর করতে পারবেন।

ইন্টিগ্রেশন মিডিয়া সার্ভিস পরিচালিত একটি জরিপে দেখা যায়, জার্মান সরকারের এই কর্মসূচির আওতায় মোট ৭৫ হাজার ৩৪৫ জন অভিবাসী বসবাসের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছিলেন। এর মধ্যে চার হাজার আবেদন বাতিল হয়েছে।তাছাড়া, যারা অপরাধের সঙ্গে জড়িত এবং যেসব ব্যক্তি মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন, তাদের এই কর্মসূচি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ওয়েবসাইট এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি
Design & Development BY ThemeNeed.Com