বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:৪০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
প্রকাশক ও সম্পাদক : মোঃ বিল্লাল হোসেন।  আইনবিষয়ক সম্পাদক: অ্যাডভোকেট রাসেল । যোগাযোগ : ০৩১-৭২৮০৮৫, ০১৮১১৫৮৮০৮০ মেইল: bdprotidinkhabor@gmail.com জহুর উল্লাহ বিল্ডিং (৩য় তলা), পানওয়ালা পাড়া, চৌমুহনী, উত্তর আগ্রাবাদ ১২৭৭, চট্টগ্রাম।
সংবাদ শিরোনাম:
ভাষা শহিদদের প্রতি মৌলভীবাজার পুনাকের শ্রদ্ধাঞ্জলি মৌলভীবাজারে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে পুলিশ আওয়ামী লীগ হট্রগোল শ্রীমঙ্গলে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ গভীর শ্রদ্ধার সাথে ভাষা শহীদদের স্মরণ শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের বিনয়বাঁশী শিল্পীগোষ্ঠী’র উদ্যোগে মাতৃভাষা দিবস পালিত ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ ‘বিশেষ ট্রেন’ আর্জেন্টিনার ক্লাব ছেড়ে আবাহনীতে খেলবেন জামাল? নওগাঁ আজ যথাযোগ্য মর্যাদায় মধ্যেদিয়ে পালিত হল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস লোহাগাড়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বীর শহীদদের প্রতি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন লোহাগাড়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস উপলক্ষে ব্রিকফিল্ড মালিক সমিতির পুষ্প অর্পণ

বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর এম,এ জলিলের জন্মদিন

উজ্জ্বল কুমার সরকারঃ

আজ ০৯ ফেব্রুয়ারি বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর অবঃ এমএ জলিল এর জন্মদিন। এম এ জলিল ১৯৪২ সালের ৯ই ফ্রেব্রুয়ারী বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলায় নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাহার পুরো নাম মোহাম্মদ আব্দুল জলিল।

তবে তিনি মেজর এম এ জলিল নামেই পরিচিত। তাহার পিতার নাম জনাব আলী চৌধুরী ও মাতার নাম রাবেয়া খাতুন। উজিরপুর ডব্লিউবি ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশন থেকে ১৯৫৯ সালে তিনি মেট্রিক পাশ করেন৷ ১৯৬১ সালে পাকিস্তানের মারি ইয়ং ক্যাডেট ইনস্টিটিউশন থেকে আইএ পাস করেন এবং এর পাশাপাশি গ্রহণ করেন সামরিক শিক্ষা৷

১৯৬৫ সালে পাকিস্তান একাডেমি থেকে গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি লাভ করেন৷ পরে মুলতানে কর্মরত থাকাকালে তিনি ইতিহাসে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন৷১৯৬২ সালে পাকিস্তান সামরিক বাহিনীতে ট্রেনি অফিসার হিসেবে যোগদান করেন৷ সামরিক বাহিনীতে চাকুরিরত অবস্থায় তিনি বি.এ পাশ করেন৷

১৯৬৫ সালে তিনি কমিশনপ্রাপ্ত হন এবং ১২নং ট্যাঙ্ক ক্যাভালরি রেজিমেন্ট অফিসার হিসেবে তৎকালীন পাক-ভারত যুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন৷ ১৯৭০ সালে তিনি মেজর পদে উন্নীত হন৷ তিনি ১৯৭১ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ছুটি নিয়ে বরিশালে আসেছিলেন।মার্চে দেশ যখন স্বাধীনতার আন্দোলনে উত্তাল বঙ্গবন্ধুর ডাকে সবাই তৈরী হচ্ছেন তখন তিনি মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন ।

মুক্তিযুদ্ধে তাহাকে মুজিবনগর সরকারের নিয়োজিত সেনা বাহিনী, বিমান বাহিনী, নৌবাহিনী, পুলিশ বাহিনী, ইপিআর বাহিনী ও আনসার বাহিনীর বাঙ্গালী অফিসার ও সৈনিকদের অগ্রাধিকার দিয়ে সাধারন জনগন তথা ছাত্র, কর্মজীবী, কৃষক, শ্রমিকদের সম্মনয়ে এগারটি সেক্টর তৈরী করে কর্নেল অবঃ( জেনারেল) ওসমানী সাহেবকে প্রধান সেনাপতি, কর্নেল অবঃ (মেজর জেনারেল) এম এ রব সাহেবকে সেনাবাহিনীর প্রধান করে এগার জন সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তাকে সেক্টর কমান্ডার নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। মেজর জলিল নবম সেক্টরের কমান্ডারের দায়িত্ব লাভ করেছিলেন৷

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) গঠনের সময়ে তিনি কাজ করেছিলেন। তিনি ছিলেন এ দলের যুগ্ম আহ্বায়ক৷ ১৯৭৩ সালে তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন৷ এছাড়া তিনি ১৯৮১ সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন৷ ১৯৮৪ সালে তিনি জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেন৷ পরবর্তীকালে তিনি জাসদ ত্যাগ করে জাতীয় মুক্তি আন্দোলন নামে একটি দল গঠন করেন৷

১৯৮৯ সালের ১৯ নভেম্বর রাত ১০টা ৩০ মিনিটে তিনি পাকিস্তানের ইসলামাবাদে মৃত্যুবরণ করেন৷ পরে ২২ নভেম্বর তার মৃতদেহ ঢাকায় আনা হয় এবং সামরিক মর্যাদায় তার দাফন সম্পন্ন করা হয়। মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাঁহাকে সমাহিত করা হয়েছিল।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ওয়েবসাইট এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি
Design & Development BY ThemeNeed.Com