রবিবার, ১৪ Jul ২০২৪, ০১:৫০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি:
চেয়ারম্যান: মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন, বার্তা প্রধান : মোহাম্মদ আসিফ খোন্দকার, আইনবিষয়ক সম্পাদক: অ্যাডভোকেট ইলিয়াস , যোগাযোগ : ০১৬১৬৫৮৮০৮০,০১৮১১৫৮৮০৮০, ঢাকা অফিস: ৪৩, শহীদ নজরুল ইসলাম রোড, চৌধুরী মল (৫ম তলা), টিকাটুলি ১২০৩ ঢাকা, ঢাকা বিভাগ, বাংলাদেশ মেইল: bdprotidinkhabor@gmail.com চট্টগ্রাম অফিস: পিআইবি৭১ টাওয়ার , বড়পুল , চট্টগ্রাম।
সংবাদ শিরোনাম:
বঙ্গবন্ধু কন্যা গোলামী চুক্তি করেননি উন্নয়নের চুক্তি করেছেখাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদা নওগাঁর মান্দা গোটগাড়ী অধ্যক্ষের কক্ষের তালা ভেঙে প্রবেশ করলেন উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাংবাদিকদের বিতর্কিত করায় এনবিআর কর্মকর্তা মতিউরের প্রথম স্ত্রী লাকীর বিরুদ্ধে বিএমইউজে চট্রগ্রাম জেলা আহবায়ক কমিটির প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের প্রয়াণ দিবস আজ জুয়া খেলার সরঞ্জাম ও নগদ টাকাসহ পাঁচজন জুয়াড়ি গ্রেফতার বিপৎসীমার ওপরে তিস্তা-ধরলার পানি, পানিবন্দি ১৫ হাজার মানুষ হাড্ডাহাড্ডি দুই চৌধুরীর ‘লড়াই লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জিতে গেলেন খোরশেদুল আলম চৌধুরী কোন লক্ষণে বুঝবেন বিবাহবিচ্ছেদ ঘটতে পারে? সিসিটিভি ফুটেজ এবং ‘Hello CMP’ অ্যাপের “আমার গাড়ি নিরাপদ” সেবার সহায়তায় মুখে হাসি ‘সরকার নারীর গৃহস্থালি কাজের অর্থনৈতিক মূল্য নির্ধারণের বিষয় বিবেচনা করছে’- অর্থ প্রতিমন্ত্রী

ছয় মাসে মণিরামপুর ভূমি অফিসের সেবা বেড়েছে বহুগুণ

এইচ এম জুয়েল রানা যশোর জেলা প্রতিনিধিঃ

শতভাগ অনলাইন আপডেট ভূমি সংক্রান্ত কাগজপত্র, সপ্তাহে একদিন গণশুনানি আর দ্রুততম সময়ের মধ্যে জমির নামজারিসহ নানামুখী সেবায় পাল্টে গেছে যশোরের মণিরামপুর উপজেলা ভূমি অফিস। সেবা নিতে নেই তৃতীয় পক্ষের দৌরাত্ম। কোনো হয়রানি ছাড়াই মিলছে জমির প্রয়োজনীয় কাগজপত্র।মণিরামপুর উপজেলা ভূমি অফিসের নানামুখী সেবা পেয়ে খুশি সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষ। যারা এক সময় তৃতীয়পক্ষের সহায়তা ছাড়া জমির কোনো কাজই করতে পারতেন না, তারাই এখন নিজের সমস্যার কথা নিজেরাই ভূমি অফিসে এসে বলতে পারছেন। সেবাগত এই পরিবর্তনের সাথে একটি চূড়ান্ত পরিকল্পনা নিয়ে ভূমি অফিসের পরিবেশ এবং অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজও এগিয়ে চলছে।

বর্তমান মণিরামপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কর্মরত রয়েছেন মোঃ আলী হাসান। তিনি (১৩ জুন ২০২২) এই উপজেলায় যোগদানের পর থেকেই জনগণ সেবা নিতে এসে যেন ঘুরে না যায় সে জন্য বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।এরমধ্যে ভূমি অফিস আঙ্গিনায় সচেতনমূলক সাইনবোর্ড, এবং ব্যানার ফেস্টুন টাঙ্গিয়েছে সহকারী কমিশনার (ভূমি)। এমনকি সেখানে স্পষ্ট করে লেখা রয়েছে সেবা গ্রহণের ক্ষেত্রে সেবাগ্রহীতাদের নিকট থেকে মার্জিত ও শোভনীয় আচরণকাম্য। দালাল চিহ্নিতকরণের কাজ চলছে. প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করুন। এ অফিস সিসি টিভির আওতায় রয়েছে, অবৈধ লেনদেন করা থেকে বিরত থাকুন। ডাকযোগে খতিয়ান বা ম্যাপের জন্য ১৬১২২ এ কল করুণ। নিজের কাজ নিজে করুন দালাল বাটপার হতে দুরে থাকুন। আপনার ভূমি সংক্রান্ত সমস্যার জন্য সরাসরি এসিল্যন্ডের সাথে কথা বলুন। নামজারি সরকারি ফি ১১৭০/=। দালাল ও বাটপার হতে দুরে থাকুন। সাংবাদিক পরিচয়ে কোন অবৈধ কাজের সুপারিশ করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শতভাগ ই-নামজারী করা হয় এখানে। বর্তমান তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর দেশে অনেকটাই কাজের গতি এগিয়েছে। আগে একসময় নামজারীর জন্য অনেক ঘুরতে হতো জনগণকে ।
এমনকি মাসের পর মাস অফিসের বারান্দায় এসে দাঁড়িয়ে থাকতে হত। এখন আর তা নেই । দ্রæত সময়ের মধ্যে  নামজারী হচ্ছে। সম্পূর্ণ অনলাইনে। কাগজপত্র সঠিক থাকলে যাচাইবাছাই এর মধ্য দিয়ে এসব নামজারী করা হয়ে থাকে। কমসময়ে নামজারী করতে পারায় গ্রাহকদেরও বেশ সুবিধা হয়েছে। নামজারী হওয়ার পর আবেদনকারীর নিজ মোবাইল ফোনে চলে যাবে মেসেজ। নেই এখন আর ভোগান্তী।জনগণের দোড়গোড়ায় ভূমি সেবা পৌঁছে দিতে দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করছেন সহকারী কমিশনার (ভূমি)আলী হাসান। যোগাদানের পর থেকে এই পর্যন্ত ৩৫৩ টি রেন্ট সার্টিফিকেট মামলা নিষ্পত্তি করে সরকার ভূমি উন্নয়ন কর আদায় করেছে ২২,৩৭,৫৫৬ টাকা।সরকারি সম্পত্তি রক্ষায় ভিপি সম্পত্তির নবায়ন সম্পন্ন হয়েছে ৮০% নথির। বিগত ৫ মাসে মিস কেস নিষ্পন্ন করা হয়েছে ৯০ টি। নামজারি নিষ্পন্ন করা হয়েছে ৮৪৮৮ টি। এ ছাড়াও সরকারি খাস জমি উদ্ধার করে সেখানে সরকারের দখলে রাখার জন্য ১৭ টি ইউনিয়নসহ পৌরসভায় বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে৷ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীনদের মাঝে শান্তিপূর্ণভাবে ভূমিহীন গৃহহীনদের ঘর তৈরির জন্য খাস জমি চিহ্নিতকরণ করা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আরেকটি নির্দেশ এক ইঞ্চি যায়গা খালি থাকবে না প্রতিপালনের জন্য ভূমি অফিসের আঙ্গিনায় সবজি বাগান করা হয়েছে যেখানে বেগুন, লাল শাক, পালং শাক, গাজর, সবুজ শাক, পেপের চাষ করা হচ্ছে যা সকলের জন্য উন্মুক্ত।তার এমন উদ্যোগ ও সচেতনামূলক কর্মকান্ডে ভূমি অফিসের সেবার মান যেমন বেড়েছে তেমনি এমন সেবা পেয়ে জনগণের মাঝেও দেখা গেছে আনন্দ আর উৎফল্ল। কেউ যেন ভূমি বিষয়ক কোন কাজে এসে ঘুরে না যান এবং সবসময় পর্যাপ্ত সেবা নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছেন সহকারী কমিশনার (ভূমি)আলী হাসান। এমনকি ভূমি অফিসে থাকা সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ও তিনি সতর্কতা অবলম্বন করে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে থাকেন। জনগণকে যেন হয়রানি না করেন এবং কোন ধরনের ঘুষ লেনদেন না হয়। যদি কারও বিরুদ্ধে এমন কোন তথ্য পান তাহলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।এসব দিকনির্দেশনামূলক পরামর্শে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজের গতিও আগের চেয়ে অনেকটা বেড়ে গেছে। সেই সাথে উপজেলার ইউনিয়ন ভূমি অফিসগুলোও। শুধু তাই নয়,এই সাহসী কর্মকর্তা। কখনো অন্যায়ের সাথে আপোষ করেনি তিনি। নিয়মিত মাদক ও বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে যাচ্ছেন। অবৈধ বালু ও মাটি ব্যবসায়ীদেরকে অর্থদন্ড দিয়েছেন।

ভূমি সেবা নিচ্ছেন এরকম কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাঁটবিলা এলাকার সুদিপ কুমার রাহুল, মশ্মিমনগর এলাকার  রেজওয়ান হোসেন খান, ভোজগাতি এলাকার আলহাজ্ব সোবাহান বক্স গাজী তারা বলেন, এই মণিরামপুর উপজেলা ভূমি অফিসের মত যদি দেশের প্রত্যেকটা সরকারী দপ্তর এত স্ব”ছ সেবা প্রদান করতো তাহলে জনগণের এতো দূর্ভোগ হতো না। আমাদের এই মণিরামপুর উপজেলা ভূমি অফিস আগের চেয়ে এখনকার সেবার মান অনেক ভালো। আমরা আজকে জমি খারিজের কাজ করতে আসছি এবং এই জমি খারিজের কাজ মাত্র ৫ মিনিটেই হয়ে গেলো । ভূমির কাজ সহজলভ্য হওয়ায় মানুষ এখন তাই সরাসরি ভূমি অফিসে আসতে আগ্রহী হচ্ছে। মণিরামপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)আলী হাসান স্যার কে সেজন্য আমরা বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানাই।

মণিরামপুর উপজেলার রঘুনাথ পুর এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা অখিল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন,আমি এই ভুমি অফিসে নাম পত্তনের জন্য এসেছি অতি দ্রুত সেবা পেয়েছি; বর্তমানে অফিসে সেবা নিতে এসে কেউ হয়রানির শিকার হচ্ছেনা।
মণিরামপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের বার বার নির্বাচিত সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ¦ অধ্যক্ষ কাজী মাহমুদুল হাসান বলেন, ভূমি সেবা প্রদানে মণিরামপুর ভূমি অফিস স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতার আওতায় রয়েছে। বর্তমানে মনিরামপুর উপজেলার সেবাপ্রত্যাশী মানুষের আস্থা ও ভালোবাসার যায়গায় পরিণত হছে ভূমি অফিস।
মনিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নাজমা খানম বলেন, এসিল্যান্ড আলী হাসান  একজন সৎ,কর্মট অফিসার। তিনি দিন-রাত এলাকার ও ভূমি সেবারমান উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। আমি আশাবাদী তার মাঝে কাজের যে স্পৃহা আছে তিনি খুব দ্রুতই  তার লক্ষ্যে পৌঁছাবেন।

মণিরামপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি)আলী হাসান বলেন, জনগণের দোড়গোড়ায় ভূমি সেবা পৌঁছে দিতে কাজ করে যাচ্ছি। অফিসের বিভিন্ন স্থানে অবৈধভাবে কোনো প্রতারক, দালাল বা বাটপারদের খপ্পরে পড়ে লেনদেন না করার জন্য সচেতনামূলক বার্তা দেওয়া হয়েছে৷ পুরো অফিসের কার্যক্রম সিসিটিভির আওতায় রয়েছে। বর্তমানে দ্রুততম সময়ে নামজারি আবেদন নিষ্পত্তিতে কাজ করছে অফিসের সকলে৷ বর্তমানে অনলাইনে নামজারির সকল কার্যক্রম অনলাইনে সম্পাদিত হচ্ছে বিধায় দালাল, বাটপারদের দৌরাত্ম্য এখন নেই৷ সরকারি নির্দেশনা মেনে বৈধ কাজ করতে গেলে কোন না কোন ঝাঁমেলা পোহাতে হয়। অন্যায়, দুর্নীতি ও অবৈধ কাজ কাউকে করতে দেওয়া হবে না। সেবাপ্রার্থীদের মতামতকে গুরুত্ব দিয়ে সেবা দেওয়ার চেষ্টা করেছি, কতটুকু পেরেছি তা সেবাপ্রার্থীরাই বলতে পারবেন।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ওয়েবসাইট এর কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি
Design & Development BY ThemeNeed.Com